বুয়েট শিক্ষার্থীর স্ট্যাটাসে আবরার হ’ত্যাকা’ণ্ড ঘটনায় নতুন মোড়!

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদ হ’ত্যার প্রতিবাদে বুয়েট ক্যাম্পাস বি’ক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে।

শিক্ষার্থীরা ফাহাদ হ’ত্যার সর্বোচ্চ শা’স্তি নিশ্চিত করে জ’ড়িতদের স্থায়ী বহিষ্কারসহ ৮ দফা দাবিতে বি’ক্ষোভ করছে।

এ হ’ত্যার বিচারকাজ যেনো দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে সম্পন্ন হয় সেজন্য বুয়েট প্রশাসনের কাছে দাবি করেছেন তারা।

এ সময় সাইয়েদ ঈ’মাদ উদ্দিন নামে এক বুয়েট ছাত্র তার ফেসবুক ওয়ালে একটি স্ট্যাটাস দেন। সেটা নিয়ে শুরু এখন নতুন বিতর্ক।

বুয়েট ছাত্র সাইয়েদ ঈ’মাদ উদ্দিনের স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য তুলে ধ’রা হল-

“যে এক মিনিটের ভিডিওটা ভাইরাল হয়েছে, এটায় যাদের দেখা যাচ্ছে এরা কেউ আসল খু’নি না। আবরার ফাহাদকে ২০১১- তে নিয়ে ‘১৫’ ও ‘১৬’ ব্যাচ বেদম পিটাইছিল, তখনো ম’রে নাই। পরে তাকে ২০১১ থেকে ২০০৫- এ নিয়ে রাখা হয় ও এই রাখার কাজটা খু’নিরা ‘১৭’ এর পোলাপাইন দিয়ে করায়।

আরো পড়ুন  "খেলাধুলার মাধ্যমে বিকশিত হোক আগামী প্রজন্ম!"- রোটারীয়ান মিজানুর রহমান

এরপর ২০০৫ এ কিছু একটা হইসিল, তবে পুরোটা এই মুহূর্তে বলতে পারছি না। এরপর তারে ২০০৫ থেকে প্রায় মৃ’তপ্রায় অবস্থায় সিঁড়ির কাছে রাখা হয় যেখানে সে মা’রা যায়। এই পুরো অবস্থাতেই বডি আনা নেয়ার কাজ ‘১৭’ দিয়ে করানো হয়েছে আর এর একটা অংশই আপনারা এক মিনিটের ভিডিওতে দেখেছেন। কাজেই এই ভিডিওতে আসল খু’নিরা ছিলই না। আম’রা এতক্ষণ সবাই মিলে শেরে বাংলা হলে ছিলাম।

আরো পড়ুন  চাঁদ রাতে মেহেদি দেয়ার কথা বলে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে গণধর্ষণ

অনেক টালবাহানার পর (এমনকি পু’লিশ আমাদের ধাক্কা দিয়ে প্রভোস্ট’কে বের করতে চাচ্ছিল) শেষ পর্যন্ত প্রভোস্টের কাছ থেকে পুরো ৬ ঘণ্টার ভিডিও আম’রা নিতে পেরেছি। প্রায় ‘১৮’ জনকে খু’নের সাথে জ’ড়িত বলে চিহ্নিত করা গেছে আর ২০১১ তে কিছু খু’নি ছিল যারা বের হয়নি বলে আইডেন্টিফাই করা যায়নি। সবাই ‘১৫’,‘১৬’ ব্যাচের। কিন্তু রুম যাদের ও যাদের চিহ্নিত করা হয়েছে তাদের প্যাদালে আসল সব খু’নিদের চেহারা বের হয়ে আসবে’।”

Dhaka News Time