ভুল করলো আম্পায়ার আর শাস্তি পেল সাকিব-নুরুল : হার্শা ভোগলে - Dhaka News Time

ভুল করলো আম্পায়ার আর শাস্তি পেল সাকিব-নুরুল : হার্শা ভোগলে

খেলার টানটান উত্তেজনা বাউন্ডারি লাইনে দাঁড়িয়ে যায় অধিনায়ক সাকিব আল হাসানসহটাইগার টিম । সাকিব অভিযোগ তোলেন তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে। মাঠে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও তখন ফিল্ড আম্পায়ারকে বিষয়টা বোঝানের চেষ্টা করেছেন। কেউ কোনো কথা কানে তুলছে না। ভিডিও ফুটেজ বলছে, সেটা আসলেই নো বল ছিল। তাই এক পর্যায়ে সাকিব মাঠ থেকে চলে আসার জন্য দুই ব্যাটসম্যানকে ইশারা করেন।

বাংলাদেশ কোচ কোর্টনি ওয়ালশ ও ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজনের হস্তক্ষেপে খেলা শুরু হয়। সেখান থেকে মাহমুদউল্লাহর বীরোচিত ইনিংসে ভর করে ১ বল বাকি থাকতেই ২ উইকেটে ম্যাচ জেতে ফাইনালের টিকেট কাটে বাংলাদেশ।
য জানা গেছে নিষিদ্ধ হচ্ছেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব। ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রড সাকিবকে ২৫ শতাংশ ম্যাচ ফি জরিমানা আর একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দিয়েছেন। ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছেন একাদশের বাইরে থাকা কাজী নুরুল হাসান সোহানও।

যদিও ঘটনার উৎপত্তি আসলে আম্পায়ারের ভুলে! যেহেতু আম্পায়ারদের ভুলের কারণেই এত কিছু, তাই সাকিব-নুরুলকে হয়তো বেশি জরিমানা গুনতে হবে। আর যেখানে ভুল করলো আম্পায়ার, সেখানে শাস্তি হলো সাকিবের।

হার্শা ভোগলে তামিমের পোষ্ট শেয়ার করেন এই ভাবেই,
তামিম ইকবাল বলছেন, ম্যাচ শেষে সাক্ষাত্কারে, স্কয়ার লেব আম্পায়ার ইশরু উদানা থেকে দ্বিতীয় শর্ট বোল্ডের পরে না বললেও স্পষ্ট ছিল, যেখানে ভুলে যাওয়া দৃশ্যের পিছনে সমস্যাটি গতকাল ছিল।

মনে হয়, আমি যা শুনেছি তা থেকে, যে প্রথম শর্ট-টালের বলটি বোল্ড হয়ে গিয়েছিল, সেই বর্গ লেগ আম্পায়ারের মনে হয়েছিল যে ওভারের জন্য এটি একটি বাউন্সার ছিল। কিন্তু ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে সুইং (এবং মিস!) ছিল এবং রেফারেল ছিল, বোলারের শেষ দিকে আম্পায়ার ওভারে বাউন্সারের জন্য সিগন্যাল করেননি। তত্ক্ষণাতো উদ্যানকেও বলা হয়নি।

২২ তম শর্টমুন্ড বল বোল্ড হওয়ার পর, বর্গাকার লেগ আম্পায়ার, সঠিকভাবে, নো-বল সিল করা। স্পষ্টতই তিনি সচেতন ছিলেন না যে তার সহকর্মী বোলারকে বলেননি যে তিনি ইতিমধ্যেই এক বোল্ড করেছেন।

আর তাই বোলারের শেষ দিকে আম্পায়ার আবার যুক্তি দেখান, যেহেতু বোলারকে জানানো হয়নি যে ওভারের জন্য তার কোয়ার্টার বাউন্সাররা সম্পন্ন হয়েছে, সে এখন দ্বিতীয় বাউন্সারের জন্য তাকে শাস্তি দেবে না।

এটা মনে হয় যে, এটি ছিল মূলত, বোলারের শেষ দিকে আম্পায়ারের একটি ত্রুটি। চূড়ান্ত পর্যায়ে থাকা খেলোয়াড়দের পক্ষে বিস্মিত হওয়ার কারণেই বাংলাদেশ খেলোয়াড়রা বিরক্ত হয়ে পড়েন, তবে যে ভয়ানক প্রতিক্রিয়া অনুসরণ করে তা যথাযথভাবে সমর্থন করে না।

ঘটনার পরে কি ঘটেছে তা গ্রহণযোগ্য ছিল না এবং আমি আশা করি সবাই দেশবাসী সহ, অনুভব করবো।

বন্ধুদের জন্য শেয়ার করে দিন

About Dhaka News Time

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।