মসজিদকে শব্দদূষণকারী হিসেবে দেখানো হলো ভারতের পাঠ্যবইয়ে - Dhaka News Time

মসজিদকে শব্দদূষণকারী হিসেবে দেখানো হলো ভারতের পাঠ্যবইয়ে

ভারতের ষষ্ঠ শ্রেণির জন্য কিছু স্কুলের বিজ্ঞান বইয়ে মসজিদকে শব্দদূষণকারী হিসেবে প্রদর্শিত করা হয়েছে। ইন্ডিয়ান সার্টিফিকেট অব সেকেন্ডারি এডুকেশনের (আইসিএসই) তত্ত্বাবধানে থাকা নির্দিষ্ট কিছু স্কুলের জন্য প্রণিত পাঠ্যবইটিতে এক চিত্রে রেলগাড়ি, গাড়ি, বিমানের পাশাপাশি মসজিদকে শব্দদূষণকারী হিসেবে দেখানো হয়, ছবিতে দেখা যায় একজন ব্যক্তি শব্দে মুখ বিকৃত করে কান ঢেকে বসে আছেন।

আইসিএসই জানান, তারা এ বইটি প্রকাশ কিংবা সুপারিশ করেনি, যেসব স্কুলগুলো বইটি সুপারিশ করেছে এটা তাদের বিষয়।

কাউন্সিল ফর ইন্ডিয়ান স্কুল সার্টিফিকেট এক্সামিনেশনের প্রধান নির্বাহী ও সচিব গেরি আরাথুন বলেন, যদি কোনো বইয়ে আপত্তিকর বিষয় কোনো নির্দিষ্ট স্কুলে পড়ানো হয় তাহলে সেটার দায় সেই স্কুল ও বইটির প্রকাশকের সেটি দেখতে হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এ বইটি প্রত্যাহারে অনলাইন পিটিশন হবার পরে বইটির প্রকাশনা সংস্থা সেলিনা পাবলিশার্সের হেমন্ত গুপ্ত ক্ষমা চেয়েছেন। তিনি এটাও নিশ্চিত করেছেন পরবর্তী সংস্করণে এ ভুল সংশোধন করা হবে। তিনি বলেন, আমরা যদি কারো অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে থাকি তাহলে আমরা ক্ষমাপ্রার্থী।

কিছুদিন আগে সংগীত শিল্পী সনু নিগম মসজিদে আজানে লাউড স্পিকার ব্যবহার করা নিয়ে সমালোচনা করে বিতর্কের সৃষ্টি করেছিলেন। সম্প্রতি ভারতের বেশ কয়েকটি পাঠ্যবইয়ের বিষয় বিতর্কের সৃষ্টি করেছে। গেলো মাসে দেখা যায় ভারতের নবম শ্রেণীর একটি হিন্দি পাঠ্যবইয়ে যিশুখ্রিস্টকে ‘শয়তান’ অভিহিত করা হয়। গেলো এপ্রিলে দ্বাদশ শ্রেণীর শারীরিক শিক্ষার পাঠ্যবইয়ে নারীদের শারীরিক গড়ন ৩৬-২৪-৩৬ আদর্শ বলে উল্লেখ করা হয়।

বন্ধুদের জন্য শেয়ার করে দিন

About Dhaka News Time

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

error: © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি ।